বাংলা

ঘুরে আসুন সিলেট। উপভোগ করুন এর নৈসর্গিক প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্য। ঝর্না, হাওর, পাহাড়, চা-বাগান, অভয়ারন্য – কি নেই সিলেটে? প্রায় সবই আছে। আর আছে আমাদের 

জাফলং

জাফলং

সীমান্তবর্তী এলাকায় জাফলং অবস্থিত। এর অপর পাশে ভারতের ডাওকি অঞ্চল। ডাওকি অঞ্চলের পাহাড় থেকে ডাওকি নদী এই জাফলং দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে।

বিছানাকান্দি

বিছানাকান্দি

এখানে ঝর্ণার পাশাপাশি বর্ষাকালে কালো মেঘ পাহাড়গুলোকে আচ্ছাদিত করে ফেলে। এছাড়া এখানে ভোলাগঞ্জ অভিমুখে বয়ে গিয়েছে পিইয়াইন নদীর একটি শাখা।

পান্তুমাই

পান্তুমাই

ভারত সীমান্তে মেঘালয় পাহাড়ের পাদদেশে এর অবস্থান। পানতুমাই গ্রামসবচেয়ে সুন্দর গ্রাম। যদিও অনেকে একে “পাংথুমাই” বলে, কিন্তু এর সঠিক উচ্চারণ ‘পানতুমাই’।

জাফলং, বিছানাকান্দি, পান্তুমাই ছাড়াও আরও রয়েছে অসংখ্য পর্যটন স্পট।

আমাদের রুম সমুহ এবং অন্যান্য তথ্য

প্রিমিয়াম সুইট(এপার্টমেন্ট)

২টি মাস্টার বেড এবং ২টি সিঙ্গেল বেড

ট্যারিফ - ৳৬৫০০/-

হানিমূন সুইট(এপার্টমেন্ট)

১টি মাস্টার বেড এবং ২টি সিঙ্গেল বেড

ট্যারিফ - ৳৪৫০০/-

এক্সিকিউটিভ সুইট

১টি মাস্টার বেড

ট্যারিফ - ৳৩৬০০/-

এক্সিকিউটিভ সুইট

২টি সিঙ্গেল বেড

ট্যারিফ - ৳৩০০০/-

প্রতিটি ইউনিটে আছেঃ

  • রান্নাঘর
  • নিজস্ব বাথরুম
  • এয়ার কন্ডিশন
  • ফ্ল্যাট স্ক্রীন টিভি
  • ফ্রিজ
  • ফ্রি ওয়াইফাই

ঢাকা অফিস

এইচ-৬৪/২, নিউ এয়ারপোর্ট রোড, আমতলী, মহাখালী, ঢাকা-১২১২

সিলেট অফিস

৬৭ এয়ারপোর্ট রোড, চন্দ্রমল্লিকা ভবন,খাদিমনগর, বড়শলা, সিলেট-৩১০২

আমাদের কথা

প্রাকৃতিক ভূ-দৃশ্য বা ল্যান্ডস্কেপ যাই বলিনা কেন, বাংলাদেশ এমনই একটি দেশ । যার মধ্যে ভূ-দৃশ্য ও নানা কীর্তিতে ভরপুর সিলেট । কি নেই এখানে ।যত্রতত্র নয়নাভিরাম চা-বাগান, পাহাড়, জলপ্রপাত, ¯স্রোতস্বিনী নদী, পাথর ও পানির যৌথ কলরব । আছে কিংবদন্তিতূল্য সূফী সাধক হয়রত শাহজালাল (রা:)হয়রত শাহপরাণ (রা:) ও তাদের সঙ্গীদের সমাধী। 

কিন্ত ”দেখা হয় নাই চক্ষু মেলিয়া, ঘর হতে শুধু দুই পা ফেলিয়া” এমনই অপরূপ কিছু নিদর্শন । যেখানে মেঘ ও কুয়াশার লুকোচুরি থাকে নিত্য । প্রাকৃতিক সব রঙে রাঙানো এমনই একটি জনপদ পান্তুমাই । দর্শনীয় এই স্থানের একদিকে মেঘালয় পাহাড় । কিন্ত তার ঢালে আছে পিয়াইন নদী এই পিয়াইন নদীর একদিকে পান্তুমাই, অন্য প্রশাখার পাশে দাঁড়িয়ে আছে আরেকটি জনপদ জাফলং । ঐ নদীর প্রাণ, ওপার থেকে ধেয়ে আসা একটি জলপ্রপাত । পান্তুমাই-র ওপারে থাকা ভিনদেশীগণ যাকে ঢাকে মায়াবতি বলে, আবার কারো কারো কাছে তার পরিচয় মায়াঝর্ণা । স্থানীয়রা অতিথীদের বলেন পাটাছড়া ঝর্ণা বাবড়হিলঝর্ণা  নামে । 

মেঘালয় বেষ্টিত আরেকটি নদী হচ্ছে সারি নদী। এই নদী ধরে ধরে আবার যাওয়া যায় লালাখাল । এখানে না গেলে ভাবাই যায় না প্রাকৃতিক সৌন্দর্য কত অপরূপ হতে পারে । আবার রং যদি সবুজ হয়, তবে সবুজের অনেক বৈচিত্রে যাদুকরি যুগলবন্দি হচ্ছে বিছনাকান্দি । এই জনপদ পাথরের সংগ্রহশালা হলেও এর প্রাকৃতিক ভূ-দৃশ্যাদি ও জলপ্রপাতের কলকলরব এককথায় নয়নাভিরাম । বাংলাদেশ সীমান্ত লাগোয়া গোয়াইন নদী বেয়ে চলা জনপদটি এক অপরূপ প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের নিদর্শন । 

আবার স্থাপত্য ও প্রকৌশল যে দর্শনীয় বস্ত হতে পারে ভাবাই যায় না। সিলেট শহরে আছে এমনি এক নিদর্শন, যার নাম কিন ব্রিজ । মনে করা হয় ইংরেজ গভর্ণর স্যার মাইকেল কিনের ১৯৩২-১৯৩৭ সনের শাসনাকালে এই ব্রিজের নির্মান ও তার নামানুসারে নামকরন করা হয় । 

কোথায় আছে রৌদ্র ও ছায়ার ধ্রুপদী ছন্দ ? নির্মল ও স্বচ্ছ পানির সুনসান নিরাবতা ? এই আলো ও ছায়ার লুকোচুরি পাওয়া যায় একটি জলাবনে । আবার এই জলাবনের মাঝে বিষ্ময়করভাবে স্বচ্ছ পানিতে দাঁড়িয়ে আছে প্রচুর বৃক্ষরাজি । যাকে স্থানীয়রা বলেন ”করচ গাছ” । এই জলাবন দেখতে হলে যেতে হবে রাতারগুল। এমন নৈসর্গিক নিদর্শন সারা বিশ্বেই বিরল । এই বিরল নিদর্শনের একটি কেবল বাংলাদেশের সিলেটে ।

সর্বক্ষন আমরা আপনার পাশেই আছি

যে কোন সময় কল দিন

+8801784443220 +8801784443221

যখন খুশী ই-মেইলে যোগাযোগ করুন

ই-মেইল পাঠাতে বাটনে ক্লিক করুন

ই-মেইল

সার্বক্ষনিক সেবা পেতে আমাদের সাথেই থাকুন

সাথেই থাকুন